অসহ্য যন্ত্রনায় মদনপুর ও ধাঁমগড়বাসী ইটভাঁটার বিষাক্ত কালো ধূঁয়ায় পরিবেশ বিপর্য হওয়ার পাশা-পাশি মাটিবাহী ট্রাক্টর চলাচলে দীর্ঘ যানজট

স্টাফ রিপোর্টার:-
ইটভাঁটার দূষিত কাঁলো ধূঁয়ায় পরিবেশ বিপর্য হওয়ার পাশা-পাশি,মাটিবাহী ট্রাক্টর চলাচলে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি।
নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার মদনপুর ও ধামগড় ইউনিয়ন আওতাধীন এলাকায় পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন বিহীন অসংখ্য ইটভাঁটা থাকায় অসহ্য যন্ত্রনায় দিন যাপন করছেন স্থানীয় নিরীহ বাসিন্দারা।
তবে এলাকাবাসীর অভিযোগ স্থানীয় জণপ্রতিনিধি সহ ক্ষমতাশীন দলের নেতাকর্মীরা এই ইটভাঁটার ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার কারনে এবং ইটভাঁটার মালিকরা প্রভাবশালী হওয়ায় স্থানীয় বাসিন্দারা কোন প্রকার প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছেনা।
অন্যদিকে সারা নারায়ণগঞ্জে পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে বেশ কয়েকটি ইটভাঁটা বন্ধ করা হলেও ধামগড় ও মদনপুর ইউনিয়নের আবাসিক এলাকা ও কৃষি জমির উপর অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা প্রায় ২০/২২ টি ইটভাঁটার বিরুদ্ধে রহস্য জনক কারনে কোন প্রকার পদক্ষেপ গ্রহণ করেন নি সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ ।
এই অঞ্চলে ইটের ভাঁটা স্থাপণের কারনে, কৃষি আবাঁধ নেই বললেই চলে।
তাছাড়া, ইটভাঁটার দূষিত কালো ধূয়ায় পরিবেশ নষ্ট হওয়ার পাশা-পাশি হরহামেঁশাই নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে স্থানীয় বাসিন্দারা।
এদিকে মাটি সরবরাহকারীরা বিকট শব্দের অধিকারী ইছারমাথা নামে ট্রাক্টর দিয়ে বিভিন্ন এলাকা থেকে ৩ ফসলি জমির মাটি কেটে ইটের ভাঁটায় বিক্রি করেন।
যদিও ইট প্রস্তুত ও ইটেরভাঁটা স্থাপণ (নিয়ন্ত্রন) আইন, ২০১৩-এর ৫ধারা অনুযায়ী ইট প্রস্তুতের জন্য কৃষিজমি, পাহাড় ও টিলার মাটি ব্যবহার দন্ডনীয় অপরাধ।
কিন্তু মাটিখেঁকো চক্র আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে খননযন্ত্র এক্সকাভেটর (বেকু) দিয়ে ৩ ফসলি কৃষিজমির মাটি কেটে ইটের ভাঁটায় বিক্রি করছে।
সরকারী আইনকে অমান্য করে শত অপরাধ করার পরও প্রশাসন নিরব থাকায় চাঁপা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা।

সোনারগাঁয়ের সনমান্দি, কাজহরদী, অলিপুড়া, সহ ধামগড়ের কাজিপাড়া হইতে শ্রীরামপুর, বাঁগদোবাড়িয়া, কেওঢালা পর্যন্ত সড়কে প্রতিদিন মাটিবাহী শত-শত ট্রাক্টর চলাচলের কারনে, সড়কটিতে বেশির ভাঁগ সময়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।
সরেজমিনে দেখা যায়, যানজটের কারনে, এসব এলাকার কর্মজীবি খেঁটে খাওয়া সাধারণ মানুষ সঠিক সময়ে কর্মস্থলে পৌছাতে পারছেন না।
তাছাড়া, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরাও যথা সময়ে শিক্ষাঙ্গণে পৌছাতে প্রাছেন না। এমনটাই ঘটেছে মঙ্গলবার সকাল ৮টার সময়।
চোখে পড়ে, কাজিপাড়া থেকে শ্রীরামপুর ছোট ব্রীজ পর্যন্ত সকাল ৮ থেকে ৯টা পর্যন্ত দীর্ঘ যানজট।
যানজটের কারনে, দীর্ঘ সময় আটকে থাকতে হয় শিক্ষার্থী সহ কর্মজীবি মানুষদের। অন্যদিকে, যানজটের সময় কামতাল তদন্ত কেন্দ্র ফাঁড়ির অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমানকে মুঠোফোনে অবহিত করলে, মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ শ্রীরামপুর এলাকায় এসে প্রায় ১ ঘন্টা পর যানজট মুক্ত করেন।
এ বিষয়ে, অবৈধ ইটভাঁটার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ কোন প্রকার পদক্ষেপ না নিলে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করার হুসিয়ারী দেন এলাকাবাসী।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিন্টু ব্যাপারী বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে অতি দ্রুত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *